Skip to content

অনলাইনে জমির খাজনা (খারিজ) পরিশোধ করার নিয়ম

অনলাইনে জমির খাজনা (খারিজ)পরিশোধ করার নিয়ম

আপনার কয়েকটি তো জমি ভোগ দখলের জন্য প্রতি শতাংশ জমির উপর সরকার কর্তৃক আরোপিত প্রতি বছর যে পরিমাণ খাজনা পরিশোধ করতে হয় তাকেই জমির খাজনা বা ভূমি উন্নয়ন কর বলে। আপনি যদি একজন সচেতন ও দেশপ্রেমিক নাগরিক হতে চান তবে অবশ্যই সরকারের নিয়ম অনুযায়ী প্রতিবছর খাজনার টাকা পরিশোধ করবেন। খাজনার টাকা পরিশোধ করার জন্য যে উপায় গুলো রয়েছে তার মধ্যে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে সহজ ও জনপ্রিয় উপায় হল অনলাইনে পরিশোধ করা। আপনি কি জানতে চান কিভাবে অনলাইন প্লাটফর্ম ব্যবহার করে আপনার জমির খাজনা পরিশোধ করবেন। তাহলে আসুন আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে জেনে নিন কিভাবে খাজনা পরিশোধ করতে হয়।

খাজনা পরিশোধের প্রয়োজনীয়তা

একজন দেশ প্রেমিক নাগরিক হিসেবে অবশ্যই খাজনা পরিশোধ করতে হবে। সরকারের তরফ থেকে নির্ধারিত জমির উপর কর পরিশোধ করা সকলের দায়িত্ব। আপনার জমি সরকারি নির্দেশনা মাফিক খাজনা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলে বিভিন্ন ঝামেলায় পড়বেন। এই ধরুন আপনি একটি ব্যাংকে লোন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনাকে আপনার জমির দলিল দেখাতে হবে আর জমির খাজনা পরিশোধ না থাকলে ব্যাংক লোন নিতে পারবেন না। আর দীর্ঘ বছর খাজনা পরিশোধ না করলে আপনার খাজনার পরিমাণটা অনেক বেশি হয়ে যাবে যা একসাথে পরিশোধ করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।

ভূমিকর বকেয়া হলে করণীয়

দীর্ঘদিন খাজনা না দিলে সরকার ভূমি সংক্রান্ত নিয়ম না মানার কারণে আপনার জমির উপর রেন্ট মামলা করতে পারে। এক্ষেত্রে কোন সদুত্তর না পেলে তবে আপনার জমি নিলামে বিক্রি হবে। সরকার যদি আপনার জমি নিজে ক্রয় করে তবে জমিকে খাস হিসেবে ঘোষণা করে তা জনগণের জন্য উন্মুক্ত অথবা সরকারি কাজে ব্যবহার করবে। বুঝতেই পারছেন ভূমিকর বকেয়া হলে পরিশোধ করা জরুরী।

অনলাইনে কিভাবে খাজনা পরিশোধ করতে হয়

ভূমি অফিসে গিয়ে খাজনা পরিশোধ করতে চাইলে আপনাকে নানামুখী ঝামেলা পোহাতে হবে। যেমন দীর্ঘ লাইন ক্ষেত্রে সিরিয়াল পাবেন খাজনা পরিশোধ এর জন্য। এছাড়াও অতিরিক্ত টাকা পরিশোধ করতে হতে পারে। তাই অনলাইনে বাংলার ভূমি ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজেই জমির খাজনা পরিশোধ করতে পারবেন। আপনি নিশ্চয়ই সহজেই অনলাইনে খাজনা পরিশোধের নিয়ম জানতে চান। তাহলে আমাদের সম্পূর্ণ পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়ুন আর জেনে নিন কিভাবে বাংলার ভূমি ওয়েবসাইট থেকে খাজনা পরিশোধ করতে হয়।

১। প্রথমে https://ldtax.gov.bd/citizen/register লিংকে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করুন। আপনার মোবাইল নাম্বার, জাতীয় পরিচয়পত্র ও জন্মতারিখ প্রয়জন হবে।

২। ইতিমধ্যে রেজিঃ করা থাকলে আপনার মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগিন করুন

৩। প্রোফাইল সংশোধনের মাধ্যমে আপনার বর্তমান ঠিকানা ও ইমেইল আইডি এন্ট্রি করুণ।

৪। আপনার জমির খতিয়ানের তথ্য এন্ট্রি করুন। খতিয়ানের তথ্য এন্ট্রি হলে সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিস উক্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে আপনার জমির হোল্ডিং এন্ট্রি সম্পন্ন করবে। হোল্ডিং এন্ট্রি সম্পন্ন হলে আপনার প্রফাইলে হোল্ডিং মেন্যুতে তা প্রদর্শিত হবে।

৫। হোল্ডিংয়ের তালিকা দেখতে “হোল্ডিং” মেন্যুতে ক্লিক করুন। হোল্ডিংয়ের বিস্তারিত দেখতে “বিস্তারিত” বাটনে ক্লিক করুন। উক্ত হোল্ডিং-এর দাবী কিংবা অন্য কোন তথ্য ভুল থাকলে “আপত্তি” বাটনে ক্লিক করে আপত্তি দাখিল করুণ।।

৬। উক্ত হোল্ডিং এর ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান করতে চাইলে অনলাইন পেমেন্ট বাটনে ক্লিক করে যে কোন পেমেন্ট মাধ্যম নির্বাচন করে স্টেপগুলি অনুসরন করে আপনার পেমেন্ট নিশ্চিত করুণ।

৭। নাগরিক তার একাউন্ট থেকে পেমেন্ট করলে সাথে সাথেই দাখিলার রশিদ পেয়ে যাবে।

৮। যদি পোর্টালে পেমেন্ট করা হয় তাহলে সাময়িক রশিদ এবং যথাযথ প্রমাণক সহ ভূমি অফিস থেকে দাখিলাটি সংগ্রহ করুন।

স্ট্যাটাস চেক করার নিয়ম

খাজনা পরিশোধ করার জন্য বাংলার ভূমি ওয়েবসাইটে যখন আবেদন করবেন তখন একটি স্ট্যাটাস পাবেন। সেটি চেক করার সুনির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে। আপনার যাবতীয় জমি সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করার পর যখন আবেদন সম্পন্ন হবে। একটি আবেদন নম্বর পেয়ে যাবেন। এবং সিটিজেন সার্ভিস থেকে GRN নম্বর পাবেন। এর মাধ্যমেই সার্চ অপশন থেকে চেক হয়ে যাবে।

খাজনা রশিদ ডাউনলোড করার পদ্ধতি

আবেদনের কয়েকদিন পর প্রাপ্ত নম্বর থেকে অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে রশিদ ডাউনলোড করা যাবে।grn search অপশনের মাধ্যমে ডাউনলোড করা যায়।

খাজনা পরিশোধে কত টাকা প্রয়োজন

প্রতি শতাংশ জমির উপর সরকারি নিয়ম অনুসারে বাৎসরিক খাজনা পরিশোধ করতে হয়। আপনার জমির পরিমাণ অনুসারে খাজনা পরিশোধ করতে হবে। নির্দিষ্ট ভাবে বলা যায় না কত টাকা খাজনা পরিশোধ করতে হবে। কেননা প্রতিবছর খাজনার পরিমাণ উঠানামা করে। সরকারি ভূমি সংক্রান্ত আইন অনুসারে আরোপিত খাজনার পরিমাণ অনুসারে আপনার প্রতি শতাংশ জমির উপর প্রতিবছর খাজনা টাকা পরিশোধ করবেন। বিস্তারিত জানার জন্য আপনি চাইলে আপনার নিকটস্থ উপজেলা ভূমি অফিস গিয়ে জেনে নিতে পারেন। আপনার জমির উপর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে ভূমি অফিসে গেলেই অফিসাররা আপনাকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবে। প্রতিদিনই হাজার হাজার মানুষ ভূমি অফিসে ভূমি সংক্রান্ত সহযোগিতার জন্য যায়। আপনিও আপনার জমির নিরাপত্তা ও স্থায়িত্বের জন্য ভূমি অফিসের সহযোগিতা গ্রহণ করুন।

জমির খাজনা পরিশোধ সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা

1। সংস্থার ভূমি উন্নয়ন করের দাবী আংশিক আদায় করা যায় কিনা?

 বর্তমানে সিষ্টেমে সংস্থার ভূমি উন্নয়ন করের দাবী আংশিক আদায় করার ব্যাবস্থা নেই।

2। নাগরিকের এনআইডি সংশোধন করা হয়েছে কিন্তু সিষ্টেমে আপডেট হচ্ছে না, করনীয় কি?

 নাগরিক প্রোফাইলে সংশোধন অপশনে এন.আই.ডি আপডেট বাটনে ক্লিক তথ্য আপডেট করে নিতে হবে।

3। খতিয়ানের তথ্যতে হোল্ডিং নম্বর আবশ্যক কি না?

 না, আবশ্যক নয় তবে সঠিক হোল্ডিং নম্বর দিতে পারলে ভালো।

4। সরাসরি জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে পেমেন্ট করলে কি সাথে সাথে দাখিলা পাওয়া যাবে?

 না, সাময়িক রসিদ পাওয়া যাবে। সাময়িক রসিদ সাথে নিয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে দাখিলা গ্রহন করতে হবে।

5। অগ্রীম ভূমি উন্নয়ন কর আদায় করা যাবে কিনা?

 বর্তমানে সিষ্টেমে অগ্রীম ভূমি উন্নয়ন কর আদায়ের ব্যাবস্থা নেই।

6। হোল্ডিং তথ্য ভুল, জমির তথ্য ভুল, দাবি সংক্রান্ত যাবতীয় ভুল তথ্য সংশোধনের জন্য কোথায় যোগাযোগ করবো?

 সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি অফিসে যোগাযোগ করতে হবে অথবা আপত্তি অপশনে আপত্তি দাখিল করা যাবে।

7। সরাসরি জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে পেমেন্ট করলে কি সাথে সাথে দাখিলা পাওয়া যাবে?

 না, সাময়ীক রসীদ পাওয়া যাবে। সাময়ীক রসীদ সাথে নিয়ে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে দাখিলা গ্রহন করতে হবে।

8। ভূমি সেবা হটলাইন নম্বর কোনটি?

 ১৬১২২

9। মৃত ব্যাক্তির নামে নিবন্ধন ও ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ করা যাবে কি?

 না। নিবন্ধন এবং ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের জন্য মৃত ব্যাক্তির ওয়ারিশদের নামজারি করে নিতে হবে।

10। প্রবাসী নাগরিক কিভাবে ভূমি উন্নয়ন কর নিবন্ধন করবে?

 পাসপোর্টের মাধ্যমে ভূমি উন্নয়ন কর নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে।

জমির মালিক হলে অবশ্যই আপনাকে খাজনা পরিশোধের নিয়ম জানতে হবে। তাই আমরা চেষ্টা করেছি সহজ ও সঠিক পদ্ধতিতে অনলাইনের মাধ্যমে খাজনা পরিশোধের যাবতীয় প্রয়োজনীয় তথ্য।

Comment Here