উক্তি

বাস্তবতা নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস ও ফেসবুক ক্যাপশন

বাস্তবতা হল সমস্ত কিছুর সমষ্টি যা একটি সিস্টেমের মধ্যে বাস্তব বা বিদ্যমান, কিন্তু আবার কাল্পনিক। শব্দটি অবস্থা গুলির নিজস্ব অবস্থা বোঝাতেও ব্যবহৃত হয়, যা তাদের অস্তিত্ব নির্দেশ করে। দৈহিক পরিভাষায়, বাস্তবতা হল একটি সিস্টেমের সামগ্রিকতা, পরিচিত এবং অজানা। বাস্তবতা বা অস্তিত্ব বা সত্তার প্রকৃতি সম্পর্কে দার্শনিক রুব্রিকের প্রশ্নগুলি বিবেচনা করা হয়, যা পাশ্চাত্য দার্শনিক ঐতিহ্যে অধিবিদ্যার একটি প্রধান শাখা। বিজ্ঞানের দর্শন, ধর্মের দর্শন, গণিতের দর্শন, এবং দার্শনিক যুক্তিবিদ্যা সহ দর্শনের বিভিন্ন শাখায় অধিবিদ্যার উল্লেখ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শুধুমাত্র ভৌত বস্তু- যা বাস্তব কিনা, বাস্তবতা মৌলিকভাবে অপ্রস্তুত কিনা (যেমন, আদর্শবাদ), বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব দ্বারা নির্ধারিত অনুমানমূলক সত্তা বিদ্যমান কিনা, ঈশ্বরের অস্তিত্ব আছে কিনা, সংখ্যা এবং অন্যান্য বিমূর্ত বস্তু বিদ্যমান কিনা এবং সম্ভাব্য বিশ্ব আছে কিনা; এ সব নিয়েও অধিবিদ্যা আলোচনা করে।

বাস্তব কথা নিয়ে স্ট্যাটাস

একটি সাধারণ কথায় বাস্তবতার অর্থ হল “অনুভূতি, বিশ্বাস এবং বাস্তবতার প্রতি মনোভাব”। যেমন “আমার বাস্তবতা আপনার বাস্তবতা নয়।” এটি প্রায়শই বলা হয় যে, বাস্তবতা যা নির্দেশ করে তা সম্পর্কে সম্মত হওয়া উচিত, বাস্তব কী তা নিয়ে বিবাদ না করা। উদাহরণস্বরূপ, বন্ধুদের মধ্যে একটি ধর্মীয় আলোচনায়, কেউ বলতে পারে (কৌতুক করে), “আপনি একমত হতে পারেন, কিন্তু আমার বাস্তবে, সবাই স্বর্গে যায়।”

মানুষের জীবনে বিশ বছর পর্যন্ত ইচ্ছার রাজত্ব চলে, তিরিশ বছর পর্যন্ত চলে বুদ্ধির বাজত্ব এবং চল্লিশ বছর বয়সে বিচার-বিবেচনার রাজত্ব।
—- ফ্রাংকলিন

প্রতিটি রাষ্ট্র নিজস্ব প্রয়োজনে ইতিহাসকে বিকৃত করে।
—- আহমদ ছফা

জীবনকে যদি তুমি ভালোবাস তা হলে সময়ের অপচয় কোরো না। কেননা জীবনটা সময়ের সমষ্টি দ্বারা সৃষ্টি।
—- ফ্রাম্কলিন

নারী, টাকা এবং মদ যাদের কাছে আনন্দের সামগ্রী, পরবর্তী সময়ে তাদের কাছে তা বিষ হয়েদাঁড়ায়।
—- ফ্রাংকলিন

“ যে অল্প লইয়া সুখী সেই ভাগ্যবান, আর বিত্তশালী হইয়াও যে অসুখী সে দুর্ভাগাই বটে। ”
—- ডেমোক্রিটাস

জীবন হতে পারে চমৎকার, যদি আপনি একে ভয় না পান।
এজন্য প্রয়োজন সাহস, কল্পনা শক্তি ও অল্প কিছু টাকাকড়ি।
—- চার্লি চ্যাপলিন

কষ্টের কিছু বাস্তব কথা

বাস্তবতাকে এমনভাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে যা এটিকে বিশ্বদর্শন বা তাদের অংশগুলির (ধারণাগত কাঠামো) সাথে লিঙ্ক করে। বাস্তবতা হল- সমস্ত জিনিস, কাঠামো (প্রকৃত এবং ধারণাগত), ঘটনা (অতীত এবং বর্তমান) এবং ঘটনাগুলির সামগ্রিকতা, তা পর্যবেক্ষণযোগ্য হোক বা না হোক। এটি একটি বিশ্ব দৃষ্টিভঙ্গি (সেটি ব্যক্তিগত বা ভাগ করা মানুষের অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করেই হোক) শেষ পর্যন্ত বর্ণনা বা মানচিত্র করার চেষ্টা করে।

আল্লাহর ভয়ে তুমি যা কিছু ছেড়ে দিবে, আল্লাহ্ তোমাকে তার চেয়ে উত্তম কিছু অবশ্যই দান করবেন।-বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ (সঃ)

জীবন তোমাকে যেটা দিয়েছে সেটা নিয়ে সন্তেস্ট থাকো, জীবন বড় বিচিত্র।

পৃথিবীতে সবাই ধোয়া তুলসি পাতা শুধু তুলসি গাছে যে পানি দেয় সেই খারাপ.

মুখোমুখি সত্য বলা মানুষ গুলো সবার অপ্রিয় হয়

জীবনে চলার পথে যাকে সবচেয়ে বেশি ভালবাসবে । সেই তোমাকে সবচেয়ে বেশি কষ্ট দেবে।

কি হবে জীবনে এতো পারফেক্ট মানুষ খুঁজে, যদি সেখানে ভালোবাসাই না থাকে ।

স্তব্দ রাতগুলো একসময় হাসিতে পূর্ণ থাকতো, আজ নীরবতায় পূর্ণ থাকে।

ওই ভালোবাসা কাউকে দিওনা যে ভালোবাসা শুধু তাকে কাঁদাবে।

প্রত্যেক মানুষই প্রেমে পরে, কেউ প্রকাশ করে, কেউবা লুকিয়ে রাখে ।

বাস্তব জীবন নিয়ে ক্যাপশন

পদার্থবিদ্যা, দর্শন, সমাজবিজ্ঞান, সাহিত্য সমালোচনা এবং অন্যান্য ক্ষেত্র থেকে কিছু ধারণা বাস্তবের বিভিন্ন তত্ত্ব গঠন করে। এই ধরনের মনোভাব জনপ্রিয় বক্তব্যে সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে, “উপলব্ধি হল বাস্তবতা” বা “জীবন হল আপনি যেভাবে বাস্তবতা উপলব্ধি করেন”

যে পরিশ্রমী সে অন্যের সহানুভূতির প্রত্যাশী নয়॥  —- এডমণ্ড বার্ক

“ কর্কশ কথা অগ্নিদাহের চেয়েও ভয়ঙ্কর ” —- চাণক্য

দুশ্চিন্তা দূর করার এক নম্বর উপায় হল- ব্যস্ত থাকা। —- ডেল কার্নেগী

দাম্পত্য জীবনে সুখি হতে চাও? তাহলে-পরস্পরকে অবিশ্বাস করবেনা আর ঘ্যানর ঘ্যানর করবে না। —- ডেল কার্নেগী

উচ্চাশা যেখানে শেষ হয়, সেখান থেকেই শান্তির শুরু হয়।—- ইয়ং

পরের উপকার করা ভাল কিন্তু নিজেকে পথে বসিয়ে নয় —- এডওয়ার্ড ইয়ং

বাস্তব জীবন নিয়ে উক্তি

বিজ্ঞান এবং দর্শনের অনেক ধারণা প্রায়ই সাংস্কৃতিক এবং সামাজিকভাবে বাস্তবতাকে সংজ্ঞায়িত করা হয়। এই সম্পর্কে থমাস কুহন তার বই ‘’The Structure of Scientific Revolutions (1962)’’ এ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন। দ্য সোশ্যাল কনস্ট্রাকশন অফ রিয়েলিটি, পিটার এল. বার্গার এবং টমাস লুকম্যানের লেখা জ্ঞানের সমাজবিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি বই, 1966 সালে প্রকাশিত হয়েছিল। এটি ব্যাখ্যা করেছিল যে কীভাবে জ্ঞান অর্জন করা হয় এবং বাস্তবতা বোঝার জন্য চেষ্টা করা হয়। সমস্ত বাস্তবতার মধ্যে, দৈনন্দিন জীবনের বাস্তবতা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ আমাদের চেতনা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অভিজ্ঞতার প্রতি সম্পূর্ণ সচেতন এবং মনোযোগী।

যে স্বপ্ন আপনি একা দেখেন তা কেবল একটি স্বপ্ন।আর যে স্বপ্ন আপনি সবাইকে নিয়ে দেখেন তা হলো বাস্তবতা।
— জন লেনন

বাস্তব জগতের একটি সীমানা আছে, কিন্তু কল্পনার জগতের কোন সীমা নাই ।
— জ্যঁ জ্যাক রুশো

যেহেতু আমরা বাস্তবতা পরিবর্তন করতে পারি না, আসুন আমরা চোখ পরিবর্তন করি যা বাস্তবতা দেখায়।
— নিকোস কাজান্টজাকিস

হয় আপনি বাস্তবতার সাথে আপোষ করুন, আর না হয় বাস্তবতা আপনার সাথে মিশে যাবে ।
— অ্যালেক্স হ্যালি

এক জনের কাছে পাগলামি আর অন্য জনের কাছে বাস্তবতা ।
— টিম বার্টন

বাস্তবতার বিরুদ্ধে যুদ্ধের একমাত্র অস্ত্র হলো “কল্পনা”
— লুইস ক্যারল

একজন মানুষকে সব সময় সন্তুুষ্ট রাখা সম্ভব নয়
—- এডওয়ার্ড ইয়ং

জীবন যতক্ষণ আছে বিপদ ততক্ষণ থাকবেই
—- ইমারসন

বিনা পরিশ্রমে যা অর্জন করা যায়তা দীর্ঘস্থায়ী হয় না।
—- ইমারসন

 

যে বিজ্ঞানকে অল্প জানবে সে নাস্তিক হবে, আর যে ভালো ভাবে বিজ্ঞানকে জানবে সে অবশ্যই ঈশ্বরে বিশ্বাসী হবে॥ ”
—- ফ্রান্সিস বেকন।

সত্য বলার স্বাধীনতা পৃথিবীতে সবচেয়ে সুন্দর ও শোভন জিনিস
—- বেকন

বাস্তবতা নিয়ে কিছু কথা পিক

Rahat Ali

I'm Rahat Ali here with you. I write about Informative content. If you are looking for Education, Travel, Telecom, official contact info of any Company, Organization, or Person, let's read my content on this website.
Back to top button
Close