Festival

Victory Day of Bangladesh 2022: Pictures, Quotes, History & Images

স্বাধীনতা মানুষের জন্মগত অধিকার। এটি একটি জাতির সমৃদ্ধি এবং উন্নয়নের অংশ এবং অংশ স্বাধীনতা কোনও প্রাকৃতিক উপহার নয় তবে তা অর্জন করতে হবে। এটি অর্জন করতে হবে সংগ্রামের মধ্যে, রক্তপাত, এবং জীবনের বিনিময়ে। এক বীর রক্তপাত, সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ তার স্বাধীনতা অর্জন করেছিল। 16 ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় দিবস।

আমরা স্বাধীনতা অর্জনের আগে প্রায় 200 বছর ধরে ব্রিটিশদের অধীনে ছিলাম। তখন আমরা তাদের দ্বারা নির্মমভাবে শোষিত হয়েছি। আমরা 1947 সালেও স্বাধীন হয়েছি কিন্তু বাস্তবে নয়। নিষ্ঠুর পাক শাসকরা আমাদের প্রায় 24 বছর শাসন করেছিলেন। তারা আমাদের সংস্কৃতি,অর্থনীতি এবং ভাষার উপর নিয়ন্ত্রণ করে। তারা আমাদের আর্থিকভাবে প্রতিবন্ধী করার জন্য নির্লজ্জভাবে চেষ্টা করেছিল। তারা তৎকালীন বিদ্যমান আইনকে কলুষিত করেছিল এবং ফলস্বরূপ, অবিচার বিরাজ করেছিল এবং আমরা এর চেয়ে খারাপ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিলাম। তত্কালীন পাক সরকারের শোষণ এতটাই প্ররোচিত হয়েছিল যে আমরা বাঙ্গালীরা আমাদের অস্তিত্বের জন্য মুক্তিযুদ্ধের সাথে নিজেকে নিযুক্ত করেছিলাম। আমরা আমাদের স্বাধীনতার জন্য পাক-শাসক / শাসক শ্রেণীর বিরুদ্ধে লড়াই করেছি।

বাংলা-আমাদের মাতৃভাষার অস্তিত্ব ও শ্রদ্ধার জন্য উপযুক্ত ছেলেরা তাদের মূল্যবান জীবন দিয়েছেন। শাসক শ্রেণি আমাদের প্রতি ক্রুয়ার হয়ে উঠল। 1967 সালে  দফা দাবি উত্থাপন করা হয়েছিল যা তৎকালীন পাক সরকারকে দায়ী করেছিল। আরও উগ্র / উগ্র হতে। তারপরে মুজিবুর রহমানসহ আরও কয়েকজন নেতাকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। আইয়ুব খান সরকার আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় তাকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছিল এবং পরে পরিস্থিতির জোরের কারণে তাদের মুক্তি দিয়েছে। আইয়ুব খান পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। ইয়াহিয়া সরকার গণতন্ত্রের ছদ্মবেশে নিরীহ বাঙালিদের শোষণ করেছিল। 1970 সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে নির্বাচিত হয়েছিল কিন্তু তারা নির্বাচিত দলের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করার জন্য তাদের দুর্গের খাঁজ করে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছিল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা নিয়ে উক্তি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান 1971 সালের 26 March ই মার্চ জনগণকে তৎকালীন পাক-সরকারের বিরুদ্ধে স্বাধীনতার জন্য আহ্বান জানান। তাঁর  তিহাসিক ভাষণে তিনি বলেছিলেন, ”আপনার যা আছে তা নিয়ে প্রস্তুত থাকুন। এই সংগ্রাম স্বাধীনতা ও স্বাধীনতার জন্য 1971 সালের 25 শে মার্চ নিখরচায় পাক-সেনা নিরীহ বাঙালির উপর পড়ে এবং তাদের প্রচুর সংখ্যক হত্যা করে। শেখ মুজিবকে গ্রেপ্তার করে পাকিস্তানের কারাগারে সাজা দেওয়া হয়েছিল। সেখানে তাঁকে কবর দেওয়ার জন্য তারা একটি কবর খনন করল।

বীর পুত্র শেখ মুজিব সাহসের সাথে বলেছিলেন,

“আমাকে হত্যা করুন, যদি আপনি চান তবে আমার মৃতদেহটি বাংলাদেশে প্রেরণ করুন।”

  • এই স্বাধীনতা তখনি আমার কাছে প্রকৃত স্বাধীনতা হয়ে উঠবে, যেদিন বাংলার কৃষক-মজুর ও দুঃখী মানুষের সকল দুঃখের অবসান হবে – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
  • একবার রাজাকার মানে চিরকাল রাজাকার; কিন্তু একবার মুক্তিযোদ্ধা মানে চিরকাল মুক্তিযোদ্ধা নয়। – হুমায়ূন আজাদ
  • “স্বাধীনতা একটি সুযোগর নাম যার মাধ্যমে আমরা যা কখনই হতে পারার কল্পনা করতে পারি না তা হতে পারি।” – ড্যানিয়েল যে ব্রুস্টিন
  • “স্বাধীনতা ছাড়া একটি জীবন মানে আত্মা ছাড়া শরীর।” – কাহলিল জিব্রান
  • স্বাধীনতার জন্য লড়াই করে মৃত্যু বরণ করা পরাধীনতায় সারাজীবন কাটানোর থেকে অনেক ভালো। – বব মার্লে

মহান স্বাধীনতা দিবসের স্ট্যাটাস

সংগ্রামটি সারা দেশে প্রসারিত হয়েছিল। মানুষ ক্যবদ্ধভাবে সংগ্রামে অংশ নিয়েছিল বা কেন তা জানে না। যুবক-যুবতী লোকেরা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে গিয়েছিল। তারা শর্ট কোর্সে প্রশিক্ষণ পেয়েছিল। তারা মুক্তিযোদ্ধা হয়। ভারত সরকার উদারতা বা প্রতিবেশী বোধের কারণে মুক্তিযোদ্ধা সুসজ্জিত হয়ে তাদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে পাঠায় যাতে তারা পাক-আর্মির বিরুদ্ধে তীব্র লড়াইয়ে লড়াই করতে পারে।

লড়াই এক টানা নয় মাস অব্যাহত ছিল। পাক-সেনাবাহিনী নিরীহ মানুষকে গুলি করে হত্যা করেছিল না কেবল নারী ও যুবতী মেয়েদের সতীত্ব বা কুমারীত্বকেও ক্ষতিগ্রস্থ করেছিল। মানুষ আশেপাশে এবং প্রিয়জনদের হারিয়ে আশ্রয়হীন, গৃহহীন হয়ে পড়েছিল। তবুও তারা তাদের ভয়ে পিছিয়ে ছিল না। মুক্তিযোদ্ধারা এলোমেলোভাবে নির্মম পাক-সেনার বিরুদ্ধে লড়াই করেছিল। পরিস্থিতি যখন গুরুতর ও প্রতিকূল হয়ে ওঠে, তখন তারা একটি বন্ডে স্বাক্ষর করে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। তারপরে 1971 সালের 1 December ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ অস্তিত্ব লাভ করে।

একটি নতুন এবং স্বাধীন সার্বভৌম দেশ হিসাবে বিশ্ব মানচিত্রে আমাদের একটি নতুন স্বাধীন জাতীয় পতাকা এবং একটি স্থায়ী কক্ষ ছিল। আমরা এখন 16 ডিসেম্বর বিজয় দিবস হিসাবে পালন করি।

  • “তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব।”- নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু
  • “দেশের স্বাধীনতা শুধু বীরত্বের মধ্যে দিয়েই অর্জন করা যায় না।“- মহাত্মা গান্ধী
  • প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ জীবন বাংলাদেশ আমার মরণ বাংলাদেশ…” আমাদের জীবন-মরণ এই বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে সবাইকে শুভেচ্ছা।
  • ”স্বাধীনাতা তুমি ……” মহান স্বাধীনতার জন্য যে সকল অকুতোভয় বীর সন্তানরা বিলিয়ে দিয়েছিলেন তাদের তাজা প্রাণ সে সকল শহীদদের স্মরণে….. সকলকে মহাণ স্বাধীনতা দিবসের অভিনন্দন।
  • ”একটি বাংলাদেশ তুমি… জনতার, সারা বিশ্বের বিস্ময় তুমি আমার অহংকার।” সারা বিশ্বের বিস্ময় এই বাংলাদেশের জন্য আসুন আমরা সবাই মিলে কাজ করি। স্বাধীনতার সুবর্ণ  জয়ন্তীতে এটাই হোক আমাদের শপথ।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে শুভেচ্ছা বার্তা

একাত্তরের 16 ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় দিবস। তবে অনেক দেশই বাংলাদেশকে আলাদা আলাদা তারিখ হিসাবে স্বতন্ত্র দেশ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। যেমন, ভুটান এবং ভারত প্রথম দেশ যারা বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে। বাংলাদেশের স্বীকৃতি ঘোষণার বিষয়ে কিছুটা বিতর্ক রয়েছে। এই নিয়ে কোনও বিতর্ক নেই যে ভুটানই প্রথম দেশ যা বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। 1971 সালের December ই ডিসেম্বর ভুটান বাংলাদেশের স্বীকৃতি ঘোষণা করে। তারপরে ভারত এই ঘোষণাটি 1971 ই ডিসেম্বর declared ডিসেম্বর ঘোষণা করে। পাকিস্তান কর্তৃক বাংলাদেশকে স্বীকৃতি জানানো হয় 197৪ সালের ২২ শে ফেব্রুয়ারি। তারা দুই বছর পর বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে ঘোষণা করে। 1971 সালের 31 শে আগস্ট চীন বাংলাদেশের একই স্বীকৃতি ঘোষণা করে। মুক্তিযুদ্ধের সময় চীন পাকিস্তানের মহান সমর্থক হিসাবে ছিল। এটিও লক্ষ করা দরকার যে কোন দেশটি বাংলাদেশকে সর্বশেষে স্বীকৃতি দিয়েছে এবং এটি ছিল চীন। এটি একটি সাধারণ প্রশ্ন যে কোন আরব দেশ বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দিয়েছে। ইজরায়েলই প্রথম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল এবং তারিখটি ছিল February ফেব্রুয়ারি 1971।

  • ফাঁসি অথবা বন্ধুকের গুলিকে
    ভয় না পেয়ে।
    দেশের জন্য লড়াই করে যাওয়া
    শহিদদের কোটি কোটি প্রণাম।
    শুভ স্বাধীনতা দিবস
  • এই স্বাধীনতা তখনি আমার কাছে প্রকৃত স্বাধীনতা হয়ে উঠবে, যেদিন বাংলার কৃষক-মজুর ও দুঃখী মানুষের সকল দুঃখের অবসান হবে – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
  • বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি, তাই আমি পৃথিবীর রূপ খুঁজিতে যাই না আর – জীবনানন্দ দাশ স্বাধীনতা তুমি পিতার কোমল জায়নামাজের উদার জমিন । – শামসুর রাহমান 
  • যে নিজের স্বাধীনতার জন্য লড়াই করে, তাঁর দায়িত্ব হল অন্যের স্বাধীনতা যাতে কোনও ভাবে খর্ব না হয়, সেদিকেও নজর রাখা – টমাস পেন
  • যে মাঠ থেকে এসেছিল স্বাধীনতার ডাক, সেই মাঠে আজ বসে নেশার হাট – রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ

মহান স্বাধীনতা দিবসের ছবি

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস কি 16 ই ডিসেম্বর !!
না, এটি একটি সাধারণ ভুল যা লোকেরা সবসময়ই করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস 26 শে মার্চ 16 ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয়। সাম্প্রতিককালে অনেকগুলি জিপিএ 5 হোল্ডার এবং কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই সাধারণ ভুলটি করে।

Admin

Hello, This content has published by the Site Admin. At various times, we appoint different Admin for this Website and they manage content and everything during the period. Thank you for being with us. Have a nice day!
Back to top button
Close